Home » Slider » দলে অনুপ্রবেশকারী ও বিদ্রোহীদের আ. লীগের মনোনয়ন না দেওয়ার দাবি জানিয়ে কেন্দ্রীয় আ.লীগের কাছে চিঠি।

দলে অনুপ্রবেশকারী ও বিদ্রোহীদের আ. লীগের মনোনয়ন না দেওয়ার দাবি জানিয়ে কেন্দ্রীয় আ.লীগের কাছে চিঠি।

নিজস্ব প্রতিবেদক :

দলে অনুপ্রবেশকারী ও বিদ্রোহীদের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না দেওয়ার দাবি করেছেন কাকড়াজান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রবীণ নেতা আবদুল খালেক মাস্টার। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বরাবর তিনি এ বিষয়ে একটি চিঠি দিয়েছেন। ত্যাগী, পরীক্ষিত ও দলের জন্য নিবেদিতদের মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানান তিনি। তবে প্রবীন আওয়ামী লীগার আবদুল খালেক মাস্টার চেয়ারম্যান পদে কখনো নিজের জন্য দলীয় মনোনয়ন চাননি।

সখীপুরে ১০টি ইউনিয়ন থাকলেও দ্বিতীয় ধাপে চারটি ইউনিয়নে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। ওই চারটিতে আগামী ১১ নভেম্বর ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ইউনিয়নগুলো হচ্ছে- কাকড়াজান, বহেড়াতৈল যাদবপুর ও বহুরিয়া।

প্রবীণ নেতা আবদুল খালেক মাস্টার বলেন, চারটি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে দলে অনুপ্রবেশকারী নেতাদের দৌড়াত্ব বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাঁরা মনোনয়ন পেতে ইতিমধ্যে উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ ও দৌড়ঝাপ শুরু করে দিয়েছেন। ফলে দলের জন্য নিবেদিত ও ত্যাগীরা মনোনয়ন দৌড়ে পিছিয়ে রয়েছেন। ত্যাগী নেতা-কর্মীরা যাতে মনোনয়ন পান সেই লক্ষেই আমি কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের কাছে চিঠি দিয়েছি।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার ১ নম্বর কাকড়াজান ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের যারা মনোনয়ন কেনার আগ্রহ দেখাচ্ছেন তাঁরা হচ্ছেন- বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সমাজকল্যাণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম বিদ্যুৎ, গতবারের বিদ্রোহী প্রার্থী দুলাল হোসেন, কৃষকলীগ নেতা আবদুল মালেক ওরফে শুকুর মেলেটারী, সাবেক ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ফরিদ হোসেন ও ডিএম জাকির হোসেন। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বরাবর পাঠানো ওই চিঠিতে অভিযোগ করা হয়, দুলাল হোসেন এক সময় বিএনপির সক্রিয় রাজনীতি করতেন। এরপর দীর্ঘদিন এ ইউনিয়নের কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি পদেও ছিলেন তিনি। গত ইউপি নির্বাচনের আগে ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দিলেও তিনি মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন। এরপরেও এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তারিকুল ইসলাম নির্বাচিত হন। এবারও সেই দুলাল হোসেন মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন।

বর্তমান চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম বিদ্যুৎ বলেন, এবারের নির্বাচনে বিদ্রোহী ও দলে অনুপ্রবেশকারীদের কোনো ঠাঁই নেই। তিনি আরও অভিযোগ করেন, দুলাল হোসেনের দলীয় কোনো পদ নেই। তাই তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের কোঅপট সদস্য হতে উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন।

বহুরিয়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য গোলাম কিবরিয়া সেলিম বলেন, আমার ইউনিয়নেও দলে অনুপ্রবেশকারী খন্দকার রফিকুল ইসলাম ও জুয়েল আল মামুন নামে দুই প্রার্থী রয়েছেন। খন্দকার রফিকুল ইসলাম কলেজ জীবনে ছাত্রলীগ করলেও ১৯৯৯ সালে কাদের সিদ্দিকীর দলে যোগদেন। তিনি তৎকালীন উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নীপিড়ন-নির্যাতন করেন। লাঠিমিছিল নিয়ে সখীপুরে আসেন। পরে অবশ্য আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে উচ্চ পর্যায়ে তদবির করে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

অন্যদিকে জুয়েল আল মামুন ২০১০ সালে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে রংপুরে গ্রেপ্তার হন। জুয়েলের বড়ভাই শাহীন আল মামুন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের একজন সক্রিয় কর্মী। অন্যদিকে তাঁর আরেকভাই সোলাইমান হোসেন উপজেলা যুবদলের সদস্য। জুয়েল সক্রিয়ভাবে ছাত্রলীগ না করলেও ছাত্রলীগের একাধিক নেতাকর্মীদের সঙ্গে তাঁর সখ্যতা রয়েছে। সেই সুযোগে তিনিও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লাভের আশায় উপজেলা ও জেলা নেতাদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রেখে চলছেন।

জুয়েল আল মামুন তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ২০১০ সালে তিনি গ্রেপ্তার হলেও তিনি প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সদস্য ছিলেন না। তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় পরবর্তীতে তিনি মামলা থেকে অব্যাহতি পান। তিনি নিজেকে একজন আওয়ামী লীগ কর্মী হিসেবে দাবি করে বলেন, দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি নির্বাচনে অংশ নেব।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য গোলাম কিবরিয়া বাদল বলেন, দলে অনুপ্রবেশকারী ও হাইব্রিডদের তালিকা কেন্দ্রে না পাঠানো জন্য জেলা কমিটির নেতাদের কাছে তিনি অনুরোধ জানান।

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কৃষি মন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, হাইব্রিড, অন্যদল থেকে আসা, দলে অনুপ্রবেশকারী তাঁরা মনোনয়ন পাবেন না। ত্যাগী, পরীক্ষিত ও দলের নিবেদিতদের মনোনয়নে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

Leave a Reply

error: Content is protected !!